কৃষক বন্ধু প্রকল্পে আবেদন শুরু জানুন কিভাবে করবেন আবেদন?

কৃষক বন্ধু প্রকল্পে নিবন্ধিকরণের (আবেদনের) কাজ চালু হয়ে গেছে , মানে কৃষক বন্ধু প্রকল্পে এখন নতুন আবেদন নেবার কাজ চালু করে দেওয়া হয়েছে।

কৃষক বন্ধু প্রকল্পে আবেদন শুরু জানুন কিভাবে করবেন আবেদন?
কৃষক বন্ধু প্রকল্পে আবেদন শুরু জানুন কিভাবে করবেন আবেদন?

এই পোস্টে আপনাদের জানাবো আপনারা কিভাবে এই প্রকল্পে আবেদন করতে পারবেন এবং কি কি ডকুমেন্ট (কাগজপত্র) লাগবে এই প্রকল্পে আবেদন করার জন্য।

কৃষক বন্ধু প্রকল্পটি কি ? করা এই প্রকল্পের লাভ পাবেন ?

আপনারা সকলেই “কৃষক বন্ধু” প্রকল্পের সম্মন্ধে জানেন। বর্তমান সময়ে কৃষকদের দের নিয়ে অনেক প্রকল্প চালু হয়েছে বিভিন্ন রাজ্যে আর পশ্চিমবঙ্গেও।

এই “কৃষক বন্ধু” প্রকল্পে যে সমস্ত কৃষকরা রয়েছেন তাদের পারিবারিক আর্থিক সাহায্যের জন্য চালু করা হয়েছে। এই প্রকল্প অনুসারে যেই সমস্ত কৃষক দের বয়স ১৮ থেকে ৬০ বছর তারা এই প্রকল্পের মধ্যে আসবেন।

এই বয়সের মধ্যে যদি ওই কৃষকের দুর্ঘটনা ভাবে না স্বাভাবিক ভাবে মৃত্যু হয়ে থাকে তাহলে তার পরিবার ২ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ হিসাবে পাবেন।

এছাড়াও চাষের ক্ষেত্রে আর্থিক সাহায্য দেওয়া হবে, মানে চাষের সময় কৃষকদের প্রতি একর পিছু ৫ হাজার টাকা করে আর্থিক সাহায্য দেওয়া হবে। এই সাহায্য বিভিন্ন ফসলের উপর নির্ভর করছে, ফসলের অনুসারে আর্থিক সাহায্য করা হবে।

কি কি ডকুমেন্ট (কাগজপত্র) লাগবে এই প্রকল্পে আবেদনের জন্য ?

কৃষক বন্ধু প্রকল্পে আবেদন করার জন্য আবেদনকারীর স্ব-সাক্ষরিত / টিপসহ, নিম্নলিখিত কাগজপত্রের জেরক্স জমা করতে হবে –

ক) ভোটার কার্ড (বাধ্যতামূলক )

খ) সাম্প্রতিক পর্চা : জানুয়ারী, ২০১৭ সল্ হতে গ্রহণযোগ্য (অরজিনাল আর জেরক্স দুটোই নিয়ে যেতে হবে)

গ) ব্যাংকের পাশবইয়ের প্রথম পাতার জেরক্স (যেই পাতায় আবদেনকারীর এবং ব্যাংকের তথ্য থাকে)

ঘ) কে সি সি থাকলে অবশ্যই পাশবইয়ের প্রথম পাতার জেরক্স জমা দিতে হবে।

ঙ) ফটো সোহো পরিচয়পত্র, যে কোনো একটি -আধার কার্ড, ড্রাইভিং লাইসেন্স, পাসপোর্ট, পানকার্ড।

চ) নমিনি রাখতে ইচ্ছুক থাকলে নমিনির আধার কার্ড নিয়ে যেতে হবে।

ছ) সমস্ত কাগজের অরিজিনাল কপি নিয়ে যেতে হবে এবং জেরক্স কপি ও নিয়ে যেতে হবে।

কোথায় আবেদন করবেন এবং কোথায় আবেদনের কাগজপত্র জমা দেবেন ?

এই প্রকল্পের আবেদন কৃষি অধিকারী দ্বারা বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েত ও পৌরসভা অন্তর্গত সমস্ত মৌজাগুলিতে নেওয়া হয়। আলাদা আলাদা জেলার গ্রাম পঞ্চায়েতে বা পৌরসভায় আবেদনের অফিস লাগানো হয় যার বিবরণ বা নোটিস আপনারদের গ্রাম পঞ্চায়েতে বা পৌরসভা দ্বারা দেওয়া হয়।

আর যদি কোনো ভাবে আপনি এর সম্মন্ধে না জানতে পারেন তাহলে আপনার গ্রাম পঞ্চায়েতে বা পৌরসভাতে গিয়ে আবেদনের তারিখ ও সময় জানতে পারবেন।

গ্রাম পঞ্চায়েতে বা পৌরসভা দ্বারা আবেদনের স্থান ও সময় সব কিছু আপনাদের জানিয়ে দেবেন। সেই অনুসারে উপরের লেখা সমস্ত কাগজপত্র নিয়ে ওই আবেদনের অফিসে গিয়ে নিজেদের নাম নথিভুক্ত করতে পারবেন।

আমাদের এই তথ্য আপনাদের সাহায্য করবে, যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই সকলের থাকে শেয়ার করবেন। আর এই ধরণের আরো তথ্যের জন্য নজর রাখবেন আমাদের ওয়েবসাইটে।

Leave a Comment