WB Karmo Bhumi Scheme 2022: পশ্চিমবঙ্গের কর্মভূমি প্রকল্প আবেদন পদ্ধতি

West Bengal Karmo Bhumi Scheme 2022: Online Apply @ karmabhumi.nltr.org | পশ্চিমবঙ্গ কর্মভূমি প্রকল্প 2022 – আবেদন অনলাইন | কর্মভূমি প্রকল্পের লাভ কি? কিভাবে পাবেন এই প্রকল্পের সুবিধা? জানুন এখানে।

জীবিকা নির্বাহের জন্য আমাদের সকলেরই কোন না কোন কাজের প্রয়োজন, সেটা আর নতুন করে বলার প্রয়োজন নেই। তবে এই বর্তমান পরিস্থিতিতে এখনো পর্যন্ত অনেক মানুষ কর্মহীন হয়ে রয়েছেন। কেননা কাজের জায়গাটা অনেকটাই ডাউন হয়ে গিয়েছে, অনেক বড় বড় কোম্পানি বন্ধ হয়ে গিয়েছে, এমন কি অনেক ছোটখাটো কোম্পানি সম্পূর্ণরূপে বন্ধ হয়ে গিয়েছে।

সেখানে কর্মরত অনেক শ্রমিক আজ কাজ ছাড়া। এছাড়া লকডাউন চলাকালীন সেই দৃশ্য আমরা এখনো ভুলতে পারিনি। যেখানে শুধুমাত্র জীবিকা নির্বাহের দায় এ ভিন রাজ্যে গিয়ে কাজ করতে হয়েছে পরিবারের মায়া ত্যাগ করে। কিন্তু লকডাউন চলাকালীন সমস্ত জায়গা যখন বন্ধ হতে শুরু করেছে একের পর এক, পরিযায়ী শ্রমিকরা রাস্তায় যেভাবে ঘরে ফেরার জন্য পদযাত্রা শুরু করেছিল সে দৃশ্য এখনো চোখের সামনে ভেসে ওঠে।

আর এই পরিস্থিতিতে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার এর তরফ থেকে যে প্রকল্পটি প্রণয়ন করা হয়েছিল সেটি হল কর্মভূমি প্রকল্প (Karmo Bhumi Scheme)। এই কর্মভূমি প্রকল্পের মধ্যে দিয়ে অনেকেই নিজের জীবিকা নির্বাহের জন্য কাজ অথবা চাকরির জন্য আবেদন করতে পারেন।

Karmo Bhumi Scheme - কর্মভূমি প্রকল্প আবেদন পদ্ধতি
Karmo Bhumi Scheme – কর্মভূমি প্রকল্প আবেদন পদ্ধতি

এছাড়া করোনা ভাইরাস এর জেরে সারাদেশে লকডাউন জারি থাকায় কর্মহীন হয়ে পড়েছে হাজার হাজার মানুষ। তাছাড়া ভিন রাজ্য থেকে সব রকম কাজ কর্ম ছেড়ে নিজেদের বাড়ি ফিরে এসেছেন অনেক শ্রমিক।

লকডাউন চলাকালীন পরিবহন ব্যবস্থা সম্পূর্ণরূপে বন্ধ থাকার কারণে শ্রমিকরা সাইকেলে করে, কেউ আবার গরুর গাড়িতে, আবার কেউ বা নিজের টাকায় বাস ভাড়া করে, প্লেন এ করে, অনেক শ্রমিক পায়ে হেঁটে বাড়ি ফিরেছেন।

এমন পরিস্থিতিতে কাজের থেকে সবথেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে পড়েছিল নিজেদের জীবন বাঁচানোটা, যে করেই হোক বাড়িতে পৌঁছাতেই হবে। বাড়িতে পৌঁছে গেলেও তাদের আজ কাজ হারিয়ে অর্থ অভাবে দিন কাটছে।

তাদের বেঁচে থাকার জন্য যে নূন্যতম খাবার টুকু প্রয়োজন সে টুকু জোগাড় করতে গেলে প্রয়োজন পড়ে টাকার, আর সেই টাকা আসে পরিশ্রমের উপর থেকে। সেই পরিশ্রম যদি না করা যায় কোন কাজের ক্ষেত্রে, তাহলে কেমন পরিস্থিতি তৈরি হয় নিশ্চয়ই আন্দাজ করা যাচ্ছে।

পশ্চিমবঙ্গ কর্মভূমি প্রকল্প:

এমন অবস্থায় পরিযায়ী শ্রমিক দের কথা মাথায় রেখেই, সমস্ত রকম কাজ হারানো শ্রমিকদের কথা মাথায় রেখেই পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার কর্মভূমি প্রকল্প (Karmo Bhumi Scheme) টির উদ্ভাবন করেছে।

কর্মহীন শ্রমিকদের সংসারের অনটন দূর করার জন্য এই প্রকল্প বিশেষভাবে সহায়তা করবে। তাদের দৈনন্দিন জীবনের চাহিদা পূরণের পাশাপাশি, হতাশাগ্রস্ত অবস্থা থেকে সুন্দর পরিস্থিতিতে বের করে আনতে সাহায্য করবে।

অনেকেই এই প্রকল্পে আবেদন অলরেডি করে ফেলেছেন, যদি এখনও পর্যন্ত কেউ আবেদন করতে বাকি থাকেন, তাহলে নিচে দেওয়া এই কয়েকটি পদ্ধতি অবলম্বনের মাধ্যমে কর্মভূমি প্রকল্প তে কাজের জন্য আবেদন করতে পারেন।

কর্মভূমি প্রকল্পের আবেদন পদ্ধতি:

Step 1. সবার প্রথমে আপনার মোবাইলের ব্রাউজার এ গিয়ে এই ওয়েবসাইটটিতে ভিজিট করুন, https://karmabhumi.nltr.org/ সরাসরি এই লিংকটিতে ক্লিক করে ওপেন করতে পারেন।

Karmo Bhumi Scheme Online Apply @ karmabhumi.nltr.org
Karmo Bhumi Scheme Online Apply @ karmabhumi.nltr.org

Step 2. যে পেজটি ওপেন হবে সেখানে সমস্ত অপশনে ইয়েস (Yes) সিলেক্ট করার পর, মোবাইল নাম্বার বসাবেন, তারপর ওটিপি আসবে ওটিপি বসিয়ে ভেরিফাই করবেন।

Step 3. এরপর সাবমিট করুন, সাবমিট করার পর একটি নতুন পেজ ওপেন হবে, সেই পেজে চাকরির অপশন সিলেক্ট করুন এবং আপনার সেই কাজের কত দিনের অভিজ্ঞতা রয়েছে অথবা কত বছরের অভিজ্ঞতা রয়েছে সেটা সিলেক্ট করবেন।

Step 4. এরপর কত টাকা বেতনের চাকরি করবেন সিলেক্ট করবেন। এর আগে অন্য কোন রাজ্যে কর্মরত ছিলেন কিনা সেটাও সিলেক্ট করবেন এবং বর্তমানে কোথায় কোন জেলায় বসবাস করেন সেটা উল্লেখ করুন। তারপর ডিক্লারেশন এর পর টিক দিয়ে সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন।

তো এইভাবে কর্মভূমি প্রকল্পে নিজের কর্মহীন জীবনযাপনকে সুন্দরভাবে গড়ে তোলার পুনরায় সুযোগ পাবেন। নিজের কর্ম দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা দিয়ে কাজের সন্ধান করুন এবং সেই কাজের জন্য আবেদন করুন।

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফ থেকে কর্মভূমি ওয়েব পোর্টাল এর মধ্যে দিয়ে অনেক কর্মহীন মানুষ কর্মভূমি প্রকল্প আবেদন করেছেন, কোন আতঙ্কে রাজ্যে ফিরে এসে চাকরি বদল করার কথা ভেবেছেন অনেকেই, আবার কর্মহীন হয়ে অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন অনেকেই সেক্ষেত্রে এই কর্মভূমি প্রকল্প খুবই সহযোগিতা করবে সাধারণ মানুষের।

আবেদনকারীর সমস্ত রকম পরিচয় পত্র, ঠিকানার প্রমাণপত্র, আরো অন্যান্য কাগজপত্র নিজের কাছে রাখা প্রয়োজন। কেননা কোন ক্ষেত্রে কিভাবে কাজে লাগতে পারে সেটা আগে থেকে আন্দাজ করা যায় না। তাই সমস্ত রকম কাগজপত্র গুছিয়ে রাখা বাঞ্ছনীয়।

কর্মহীন হয়ে পড়লে, দেশের উন্নতি কোনভাবে সম্ভব নয়। কেননা কাজের উপর দিয়েই দেশের উন্নতি সম্ভব হয়। সেই কারণে এই করোনা পরিস্থিতিতে জনসাধারণের সংসারে অনটনের পাশাপাশি দেশের উন্নতি সাধনে অনেকটাই বাধা এসেছে।

সেই কারণে নতুন করে আবার সবকিছু গড়ে তোলার চিন্তাভবনা নিয়ে এই প্রকল্প সাধারণ মানুষের জীবনে যেমন পরিবর্তন আনবে, তেমনি দেশের উন্নতি সাধনে অনেকটাই সহযোগিতা করবে।

HomeClick here
Official WebsiteClick here

Leave a Comment