জগদীপ ধনকড় জীবনী 2022 – শিক্ষা, পরিবার, সম্পত্তি এবং অন্যান্য বিবরণ

জগদীপ ধনকড় কে? কোথায় বাড়ি? জীবনে কিভাবে সফল হয়েছেন? আসুন জেনে নিন জগদীপ ধনকড়ের জীবন পরিচয়, পরিবার, শিক্ষা, মোট সম্পত্তি ও রাজনৈতিক বিবরণ জানুন (Biography of Jagdeep Dhankhar in Bengali)।

জগদীপ ধনকড় এর নাম নিশ্চয়ই শুনেছেন, জগদীপ ধনককড়, তিনি হলেন পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন রাজ্যপাল, তিনি ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী এবং ১৯৮৯ সাল থেকে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত লোকসভার সদস্য কিন্তু তিনি ছিলেন। জগদীপ ধনখড়কে জাতীয় গণতান্ত্রিক জোট ২০২২ সালের উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করা হয়েছে। রাজ্যপাল হওয়ার আগে তিনি ভারতীয় জনতা পার্টির সদস্য ছিলেন।

জগদীপ ধনকড়ের জীবন পরিচয় - Jagdeep Dhankhar Biography in Bengali
জগদীপ ধনকড়ের জীবন পরিচয় – Jagdeep Dhankhar Biography in Bengali

১৬ ই জুলাই ২০২২ সালে জগদীপ ধনকড়কে জাতীয় গণতান্ত্রিক জোট দ্বারা উপরাষ্ট্রপতি প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করা হয়েছিল। তিনি রাজস্থানের কিষানগড় থেকে ১৯৯৩ সাল থেকে ১৯৯৮ সালের দশম তম বিধানসভার রাজস্থানের প্রাক্তন বিধানসভার সদস্য ছিলেন, এম এল এ (MLA)।

তো চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক, জগদীভ ধনকড় এর জীবনী সম্পর্কে: 

উপরাষ্ট্রপতি জগদীভ ধনকড় জীবনী:

  • সম্পূর্ণ নাম: জগদীপ ধানকড়
  • জন্ম তারিখ: ১৮ ই মে ১৯৫১ সাল
  • বয়স: বর্তমানে ৭১ বছর
  • স্ত্রীর নাম: সুদেশ ধনকড়
  • কন্যার নাম: কামনা
  • পেশা: উকিল, রাজনীতিবিদ, পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল
  • পূর্ববর্তী অফিস: বিধানসভার সদস্য সংসদ মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী লোকসভার সদস্য
  • অন্যান্য রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতা: জনতা দল, ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস,
  • রাজনৈতিক দল: ভারতীয় জনতা পার্টি
  • শিক্ষা: রাজস্থান বিশ্ববিদ্যালয়

জগদীপ ধনকড় এর জন্ম, শৈশবকাল এবং শিক্ষা জীবন: 

জগদীপ ধনকড়, তিনি ১৯৫১ সালে ১৮ ই মে রাজস্থানের ঝুনঝুন জেলার গোপালচাঁদ কেশরী দেবীর কাছে একটি হিন্দু জাট পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি তার স্কুল শিক্ষা সৈনিক স্কুল চিত্তর্গড় থেকে শেষ করেন।

তারপর রাজস্থান ইউনিভার্সিটি জয়পুর থেকে বিএসসি এবং এল এল বি (LLB) ডিগ্রিতে স্নাতক হন। জগদীপ ধনকড় যথাক্রমে কিথানা সরকারি বিদ্যালয় এবং ঘরধানার সরকারি বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক এবং মাধ্যমিক শিক্ষা অর্জন করেন।

পদার্থ বিজ্ঞানে বি এস সি (BSC) অনার্স এবং বিশেষ মর্যাদার সঙ্গে এল এল বি পাস করেছিলেন তিনি রাজস্থান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। তিনি ইন্ডিয়ান স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করেন।

জগদীপ ধনকড় এর ব্যক্তিগত জীবন: তিনি সুদেশ ধনকড়কে ১৯৭৯ সালে বিবাহ করেন, তাদের একটি মাত্র কন্যা সন্তানের নাম হলো, কামনা।

জগদীপ ধনকড় এর কর্মজীবন: 

তিনি ১৯৭৯ সালে রাজস্থানের বার কাউন্সিলে একজন আইনজীবী হিসেবে নথিভুক্ত হন। তারপর ১৯৯০ সালের রাজস্থানের হাইকোর্ট অফ জুডিকেচার দ্বারা সিনিয়র অ্যাডভোকেট হিসেবে মনোনীত হন।

তার পাশাপাশি তিনি শপথ নেওয়ার আগে পর্যন্ত রাজ্যের একজন সিনিয়র সবচেয়ে মনোনীত সিনিয়র অ্যাডভোকেট ছিলেন। ৩০ শে জুলাই ২০১৯ এ তিনি রাজ্যপাল হন।

এছাড়া ১৯৯০ সাল থেকে প্রাথমিকভাবে ভারতের সুপ্রিম কোর্টে তিনি আইন প্রাকটিস করেছিলেন। ভারতের বিভিন্ন হাইকোর্টে হাজির হয়েছিলেন এবং রাজস্থান হাইকোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের প্রাক্তন সভাপতি ও তিনিই ছিলেন।

পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল হিসাবে জগদীপ ধনকড়: 

ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ ২০ শে জুলাই ২০১৯ সালে জগদীপ ধনকড় কে পশ্চিমবঙ্গ এর রাজ্যপাল হিসেবে নিয়োগ করেছিলেন। বর্তমান হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি টিভি রাধা কৃষ্ণান ৩০ শে জুলাই ২০১৯ সালে কলকাতা রাজভবনের রাজদীপ ধনকড় কে শপথ বাক্য পাঠ করিয়েছিলেন।

এছাড়া তিনি পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল হওয়ার পরেও পশ্চিমবঙ্গ সরকার এবং রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাথে তিনি প্রায়ই বাকবিতণ্ডা করেছিলেন। বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গের ২০২১ সালে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার তৃতীয় ব্যানার্জি মন্ত্র অথবা এর ব্যবস্থাপনার সমালোচনা করেছিলেন জগদীপ ধনকড়।

নির্বাচনী রাজনীতিতে জগদীপ ধনকড় এর ভূমিকা:

জগদীপ ধনকড় ১৯৮৯ সাল থেকে ১৯৯১ সালে জনতা দলের প্রতিনিধিত্বকারী নবম তম লোকসভায় রাজস্থানের  ঝুনঝুনু থেকে সংসদ সদস্য হয়েছিলেন, ১৯৯৩ সাল থেকে ১৯৯৮ সালের দশম তম বিধানসভা নির্বাচনে রাজস্থানের কিষান গড়ের প্রাক্তন বিধায়ক ছিলেন এই জগদীপ ধনকড়।

জগদীপ ধনকড় এন ডি এ (NDA) এর উপ-রাষ্ট্রপতি প্রার্থী ২০২২, নির্বাচিত হওয়া: 

২০২২ সালের জুলাই মাসে জগদীপ ধনকড় কে ৬ ই আগস্ট ২০২২ এ অনুষ্ঠিত ২০২২ সালের নির্বাচনের জন্য ভারতের উপরাষ্ট্রপতির জন্য জাতীয় গণতান্ত্রিক জোটের এন ডি এ প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করা হয়েছিল।

তিনি ইউনাইটেড বিরোধী দলের প্রার্থীর মার্গারেট আলভার বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, প্রাক্তন কেন্দ্রমন্ত্রী এবং ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের রাজ্যপাল।

Leave a Comment