হোম লোন নিচ্ছেন? লোন নেবার আগে এই জরুরি বিষয়গুলি জেনে নিন

হোম লোন নেওয়ার আগে কি কি জানা খুবই প্রয়োজন? জরুরি বিষয় না জানলে পড়তে পারেন বিপদে। তাহলে আসুন জেনে নিন হোম লোন নেওয়ার আগে, এই কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যার সম্পর্কে আপনার জেনে রাখা জরুরী।

স্বপ্নের ঘর তৈরি করতে গেলে সব সময়ের জন্য নগদ টাকা প্রায় বেশিরভাগ মানুষের কাছে থাকে না বললেই চলে। তার জন্য নির্ভর করতে হয় হোম লোনের উপর। আর এই হোম লোন বেশ অনেকটা সময় নিয়ে তবে পরিশোধ করতে হয়।

প্রতি মাসে মাসে ই এম আই (EMI) হিসেবে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে একটা নির্দিষ্ট অ্যামাউন্ট কেটে নেয়া হয়, লোন পরিশোধের নির্দিষ্ট সময়সীমা পর্যন্ত। তবে এই হোম লোন সম্পর্কে অনেকেই অবগত নন, বেশ কিছু বিষয়ের উপর নির্ভর করে হোম লোনের দিকে এগিয়ে যাওয়া জরুরী, তা না হলে পরবর্তীতে অনেক রকম সমস্যার মুখোমুখি আপনাকে হতে হবে।

হোম লোন নিচ্ছেন? লোন নেবার আগে এই জরুরি বিষয়গুলি জেনে নিন
হোম লোন নিচ্ছেন? লোন নেবার আগে এই জরুরি বিষয়গুলি জেনে নিন

একটি ঘর কেনা, সম্পত্তি কেনার জন্য সবথেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আর সবথেকে বড় ইনভেস্টমেন্ট বলা যেতে পারে। হোম লোন সম্পর্কে এমন কিছু বিষয় জেনে রাখা জরুরি যেগুলি ভবিষ্যতে হোম লোন নেওয়ার জন্য আপনাকে অনেক কাজে সহযোগিতা করতে পারে।

তো চলুন তাহলে জানা যাক, এই হোম লোন সম্পর্কে কিছু বিষয়:

হোম লোন কিভাবে নির্বাচন করবেন ?

ঋণদাতা নির্বাচন করার আগে আপনি বিভিন্ন সুদ এর সম্পর্কে ভালো করে জেনে নেবেন। হোম লোনের জন্য সবথেকে বেশি সুদের হার এর উপর ভিত্তি করে হোম লোন নির্বাচন করতে পারেন, তাছাড়া সেই সুদের হার নিশ্চিত নাকি ফ্লোটিং সে বিষয়ে খেয়াল রাখা জরুরী।

যদি সেই সুদের হার একেবারে ফিক্সট থাকে অথবা ওঠা নামা না করে থাকে, কিন্তু ফ্লোটিং রেট অথবা সুদের হার বাজারে পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে আলাদা আলাদা হতে পারে।

সাধারণত ফিক্সট রেট ফ্লোটিং এর থেকে ২৫ থেকে ১০০ ভাগ বেশি হয়ে থাকে। আবার যদি আপনার লোন এর সময় সীমা অল্প হয়ে থাকে, তাহলে দুই থেকে পাঁচ বছরের জন্য আপনাকে নিশ্চিত সুদের হারের বিকল্প নির্বাচন করা উচিত।

কিন্তু যদি আপনি লোন এর সময়সীমা অনেকটা বাড়িয়ে থাকেন তাহলে ফ্লোটিং রেট অথবা সুদের হার এর বিকল্প নির্বাচন করতে পারেন। কেননা আপনি এর মধ্যে পরিবর্তনের সুযোগ পেতে পারেন সুদের হারের ক্ষেত্রে।

সুদের হার ছাড়াও আপনাকে সমস্ত রকম শর্ত গুলি ভালো করে দেখতে হবে। প্রসেসিং চার্জ যেটা আপনাকে লোন দেওয়ার জন্য ব্যাংক থেকে কাটা হয়ে থাকে, সে বিষয়ে বিশেষ খেয়াল রাখা জরুরী।

এই বিষয়ের উপর নির্ভর করে যে আপনার এই হোম লোনের কতটা প্রয়োজনীয়তা রয়েছে, তাছাড়া সময় উপরে খেয়াল রাখাটা জরুরি। এছাড়া লোন সম্পর্কে জানার জন্য আপনি ইন্টারনেটে লোন এর বিষয়ে সার্চ করে জানতে পারেন।

যখন আপনি এম আই এর ভর পাই করার ক্ষেত্রে বিফল হয় থাকবেন তখন কি হতে পারে?

যদি আপনি একটি অথবা দুটিই ই এম আই না পরিশোধ করতে পারেন, তাহলে প্রথম কথা হল আপনাকে এটা জানতে হবে যে ব্যাংক কিন্তু এই লোন এর বিষয়ে কোনো রকম এদিক ওদিক করে থাকে না।

যদি আপনি প্রতিনিয়ত অর্থাৎ তিন মাসের বেশি ই এম আই না পরিশোধ করতে পারেন, বা না করে থাকেন তাহলে ব্যাংক আপনার একটি নোটিশ পাঠাবে, যেখানে আপনাকে এই ই এম আই ভরার জন্য নতুন করে জানানো হবে।

আপনি যদি কোন রকম প্রতিক্রিয়া না দেখিয়ে থাকেন তাহলে কিন্তু ব্যাংক আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারে। সেক্ষেত্রে আপনাকে লোন ডিফল্টার হিসেবে ঘোষিত করতে পারে। এছাড়া নোটিশ প্রাপ্ত হওয়ার ৬০ দিনের মধ্যে আপনি যদি সেই ই এম আই পরিশোধ করে দেন, তাহলে খুবই ভালো।

এছাড়াও যদি আপনি ই এম আই ভরতে না পারেন, তাহলে কিন্তু আপনার ক্রেডিট স্কোর এর উপর অনেক প্রভাব বিস্তার করতে পারে। যার ফলে আপনি পরবর্তিতে আর কোন রকম লোন নেওয়ার জন্য অগ্রাধিকার নাও পেতে পারেন।

হোম লোন পাওয়ার জন্য যে সমস্ত প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস অথবা কাগজপত্র আপনার প্রয়োজন পড়তে পারে:

প্রতিটি কাজের ক্ষেত্রে কিছু বিশেষ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রয়োজন হয়। তাই আপনাদের হোম লোন এর ক্ষেত্রে কিছু ডকুমেন্ট বা কাগজপত্র প্রয়োজন পড়বে সেগুলি সেগুলি হল:-

  • সম্পূর্ণ ফিলাপ করা এবং আবেদনকারীর সই করার লোন অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম।
  • পরিচয় পত্র: পাসপোর্ট
  • ভোটার আইডি কার্ড
  • আধার কার্ড
  • ড্রাইভিং লাইসেন্স
  • ঠিকানার প্রমাণপত্র
  • লাস্ট ৬ মাসের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট স্টেটমেন্ট
  • লাস্ট তিন মাসের স্যালারি স্লিপ
  • ইনকাম ট্যাক্স রিটার্ন
  • বিভিন্ন রকমের ফিসের এর পরীক্ষামূলক কাগজপত্র
  • বয়সের প্রমাণপত্র
  • এছাড়া সম্পত্তি সম্পর্কিত আরো অন্যান্য কাগজপত্র।
  • এছাড়া আগের কোনো রকম ঋণ যদি নেওয়া থাকে তার কাগজপত্র কোন কোন সময় প্রয়োজন পড়তে পারে।
  • ফ্লাট অথবা কোন বাড়ি কেনার জন্য অগ্রিম বুক করার কাগজ পত্রের কপি।

আপনাকে আপনার হোম লোনের জন্য বীমা কভার কেন নেওয়া দরকার ?

এই উপদেশ আপনাকে দেওয়া যেতেই পারে যে, আপনি শুধুমাত্র হোম লোন নেওয়ার কথা চিন্তা করবেন না। আপনাকে একটি সুবর্ণ সুযোগ দেওয়া যেতে পারে যে, সেই হোম লোনের উপরে একটি বীমা ও নেওয়া প্রয়োজন।

আপনার হোম লোন প্রতি মাস অনুসারে ই এম আই হিসেবে পরিশোধ করতে পারবেন। তাছাড়া আপনার সব থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব হলো প্রতিমাসে যে নির্দিষ্ট অ্যামাউন্ট আপনাকে ই এম আই হিসেবে দিতে হবে সেটা পরিশোধ করা।

হোম লোন বীমার কাজ হলো জীবন বীমা পলিসি অথবা লাইফ ইনসিওরেন্স পলিসির সমতুল্য বা সমান সমান বলতে পারেন। হোম লোন চলাকালীন আপনি যদি কর্মচ্যুত হয়ে থাকেন অথবা যদি আপনার কাজ হারিয়ে যায় অথবা কোনো রকম দুর্ঘটনা, কোনরকম রোগ হয়ে থাকে, তাহলে কিন্তু এই হোম লোন বীমা আপনার প্রতি মাসের ই এম আই কে সুরক্ষিত রাখার জন্য সাহায্য করে থাকে। কঠিন সময় অথবা কঠিন পরিস্থিতিতে এই লোন বীমার অর্থ হলো আপনার কাছে ই এম আই এর দেখাশোনা করার জন্য বীমা কভার রয়েছে।

কোন রকম দুর্ঘটনা অথবা অসুখের কারণে মৃত্যু অথবা বিকলাঙ্গতা / পঙ্গু হয়ে যাওয়ার মতো পরিস্থিতিতে ও এই হোম লোন বীমা কভার আপনাকে অনেক খানি সহযোগিতা করতে পারে। এছাড়া যদি আপনার চাকরি চলে যায়, সে ক্ষেত্রেও কিন্তু আপনি অনায়াসেই প্রতি মাসের ই এম আই কে সুরক্ষিত করতে পারবেন, এই হোম লোন বীমার মধ্যে দিয়ে।

Leave a Comment