নিজের চোখ দুটি সুন্দর ও আকর্ষণীয় করে তুলুন এই সহজ উপায় গুলি দিয়ে

চোখ আমাদের শরীরের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। যা আমাদের জীবনে কতটা প্রভাব ফেলে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

পৃথিবী টা কত সুন্দর তা চোখ না থাকলে বোঝাই যেত না। তবুও আমরা অজান্তেই আমাদের চোখ কে কত না অবহেলা করে চলেছি।

নিজের চোখ দুটি সুন্দর ও আকর্ষণীয় করে তুলুন এই সহজ উপায় গুলি দিয়ে
নিজের চোখ দুটি সুন্দর ও আকর্ষণীয় করে তুলুন এই সহজ উপায় গুলি দিয়ে

নারী হোক বা পুরুষ তার চোখের দিকে তাকালে সুন্দরতার অনেক খানি পরিমাপ করা যায়। চোখের যত্ন নিলে চোখ শুধু সুন্দর হয় না বরং তার দৃষ্টি শক্তি অটুট থাকে অনেক দিন।

চলুন আগে জেনে নেওয়া যাক আমরা কতটা অবহেলা করছি চোখের নিজের অজান্তেই-

১. অনেকেই সারাদিনে হয়তো এক থেকে দুবার মুখ ধোয়। মুখের সাথে সাথে চোখ ও অনেকে ভালো ভাবে ধোয় না। যা ভীষণ ভাবে ক্ষতি করে চোখের।

২. বার বার জলের ঝাপটা না দেওয়ার জন্য চারপাশের ধুলো বালি চোখের কোণে জমা হতে থাকে যার ফলে চোখে এলার্জি হতে পারে, চোখ ভীষণ ভাবে  চুলকায়।

চুলকানোর ফলে ধুলোবালি চোখের ভিতর গেঁথে যায়, যা চোখের পক্ষে মোটেও ভালো নয়।

৩. অনেকে অন্য কারো চশমা পরে, সেটা তার চোখ দেখিয়ে তার চোখের সমস্যা অনুযায়ী বানানো চশমা অন্য কারো পরতে নেই, কারণ আপনার হয়তো ওই চশমা অনুযায়ী চোখের অবস্থা মিলবে না, হীতে বিপরীত হতে পারে।

৪. লজ্জার কারণে অনেকেই রোদে বেরোনোর সময় সানগ্লাস পরে না, সূর্যের অতিবেগুনী রশ্মি চোখের ভীষণ ভাবে ক্ষতি করে।

৫. মেক আপ ও আইলাইনার, মাস্কারা লাগানো অবস্থায় অনেকে রাতে ঘুমিয়ে পড়ে, ত্বকের তো ক্ষতি করেই, সাথে চোখের ও।

৬. চোখের অসুবিধায় নিজে নিজে ডাক্তারি একেবারেই নয়।

সহজ ঘরোয়া উপায়ে চোখের যত্ন নিন, চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক –

1 . চোখ পরিষ্কার রাখুন :

সকালে ঘুম থেকে উঠে অনেকেই নানা কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ে, দেরি করে চোখে মুখে জল দেয়। এমন টা করা মোটেই উচিত নয়।

ঘুম থেকে উঠে ভাল করে চোখে ঠান্ডা জলের ঝাপটা দেওয়ার চেষ্টা করুন। এছাড়া দিনের মধ্যে ৪ থেকে ৫ বার চোখ ঠান্ডা জলে ধুয়ে নেওয়া ভালো।

2 . চোখের কোনে ময়লা জমতে দেবেন না :  

এক গ্লাস পরিস্কার ফিল্টার করা জলে এক চিমটে নুন দিয়ে সেই জলে চোখ ধুয়ে নিন দিনে একবার।

প্রখর সূর্য কিরণ ও ধূলো বালি থেকে চোখকে বাঁচানোর জন্য এবং খুব ঠান্ডা থেকে চোখকে প্রতিরোধ করার জন্য সানগ্লাস ব্যবহার করুন। রাত জাগলে চোখের কোণে কালি পড়ে, দিনে ৮ ঘন্টা ঘুম চোখের পক্ষে অত্যন্ত আবশ্যক।

3 . চোখের বিশ্রাম :

সারাদিন কাজের ফাঁকে চোখকে বিশ্রাম দিতে দুহাতের তালু ঘষে হালকা গরম করে নিন তারপর সেই গরম তালু চোখের উপর আলতো করে চেপে ঢেকে রাখুন। বেশি চোখের কাজ যাঁরা করেন তাঁরা অন্তত দিনে দুবার এভাবে বিশ্রাম নিন।

4 . চোখের যত্ন : 

বিশ্রাম নিন লাইট অফ করে, চোখে কোনো রকম আলো যেন না পড়ে। শশা গোল করে কেটে চোখের উপর রাখুন, শশা না থাকলে তার পরিবর্তে আলু গোল করে কেটে চোখের উপর রাখতে পারেন। এর ফলে চোখ যেমন ঠান্ডা অনুভব করবে সাথে সারাদিনের ধকল হতে মুক্তি পেতে পারেন।

5 . চোখের যত্নে পুষ্টিকর খাবার :

ভিটামিন এ যুক্ত খাবার চোখের পক্ষে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। দুধে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ পাওয়া যায়।

তাছাড়া গাজর, ডিম, কর্ড লিভার প্রভৃতি তে ভিটামিন এ প্রচুর পরিমাণে থাকে। দুধ, ছানা, মাখন, এবং ভিটামিন বি কমপ্লেক্স চোখের স্বাস্থ্য রক্ষায় বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

6 . চোখের ব্যায়াম :

৮ থেকে ১০ বার চোখ বন্ধ করুন ও খুলুন। চোখের মনি চক্রাকারে ধীরে ধীরে ঘোরান। জানালা দিয়ে বাইরে সবুজ গাছপালা বা সকালে সবুজ ঘাসপাতার ওপর খানিকক্ষণ একভাবে তাকিয়ে থাকুন। এটা চোখের পক্ষে ভীষণ সুন্দর একটা ব্যায়াম।

7 . চোখের যত্ন নিতে কি কি ত্যাগ করবেন :

কিছু পেতে হলে কিছু ত্যাগ করতে হয় –

ক. মাত্রাতিরিক্ত পরিশ্রম ও রাত জাগা চোখের ভীষণ ক্ষতি করে।

খ. প্রখর রোদে ও প্রবল ঠান্ডায় চোখের ক্ষতি হয়।

গ. কোনো কারনেই চোখ জোরে জোরে রগড়াবেন না।

ঘ. আজে বাজে মেক আপ চোখে লাগাবেন না।

ঙ. ডাক্তার এর পরামর্শ ছাড়া চোখে কোনো ওষুধ নিজে দেবেন না।

চ. শুয়ে বই পড়া ও কম আলোতে পড়াশোনা করা ত্যাগ করতে হবে।

ছ. সরাসরি  আলোতে না পড়াশোনা করে, দেখবেন যেন ওপর থেকে বা পাশ থেকে আলোটা বই এর  উপর পড়ে।

ঝ. যখন তখন ময়লা হাত চোখে দেবেন না।

শরীর টা আপনার তাই তাকে ভালো রাখার দ্বায়িত্ব টাও আপনার। নিজের যত্ন নিতে অনেক টাকার প্রয়োজন হয় না, প্রয়োজন হয় একটা যত্ন নেওয়ার মানসিকতা।

নিজেকেই নিজের পাশে থাকতে হবে। আপনার শরীর আপনি ভালো বোঝেন। অন্য কেউ আপনার মতো বুঝবে না।

চোখের ক্ষতি বড়ো ক্ষতি। সময় থাকতে চোখের যত্ন নিন, আপনাকে দেখতে যেমন সুন্দর লাগবে তেমনি আপনার দৃষ্টি শক্তি থাকবে অটুট।

সবুজ শাক সবজি বেশী পরিমাণে খেলে শরীরের পাশাপাশি আমাদের চোখ ও সুস্থ থাকে। চোখের পাতা ও ভ্রু কালো করার জন্য হেয়ার ডাই লাগায় অনেকে এটা একে বারেই উচিত নয়, হেয়ার ডাই তে অনেক রকম কেমিক্যাল থাকে যা চোখের পক্ষে মোটেও ভালো নয়।

ভ্রু ও চোখের পাতা ঘন ও কালো করতে ক্যাস্টর অয়েল ব্যবহার করতে পারেন। অথবা নারকেল তেলের সাথে মিশিয়ে ও ব্যবহার করতে পারেন।

এতে ভাল ফল পাবেন নিঃসন্দেহে। তবে চোখের পাতায় লাগানোর সময় খেয়াল রাখবেন যাতে চোখের ভিতর না যায়। কটন স্টিক ব্যবহার করুন, অল্প পরিমাণে তেল নিন।

ভালো  কোম্পানির কাজল, আইলাইনার, মাস্কারা ব্যবহার করুন, অবশ্যই ঘুমানোর আগে ওগুলি তুলে ঘুমাবেন এইক্ষেত্রেও কটন বলে নারকেল তেল ব্যবহার করতে পারেন, ত্বকের কোনো ক্ষতিও করে না। সুস্থ থাকুন সাবধানে থাকুন।

Leave a Comment