ঘরে বসে অনলাইনে টাকা উপার্জন করুন এই পদ্ধতি গুলি দিয়ে

ঘরে বসে অনলাইনে টাকা উপার্জন: প্রতিটি মানুষ চাইবেন যে, কিভাবে একটু অতিরিক্ত উপার্জন করা যায়। তার জন্য অনলাইনে গুগলে গিয়ে প্রতিদিন বহু মানুষ সার্চ করে থাকেন যে কিভাবে অনলাইনে টাকা উপার্জন করা যায়। কেননা সুন্দর ভাবে জীবন যাপন করার জন্য টাকা-পয়সার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা কতখানি তা তো আমরা সকলেই জানি। তাই অতিরিক্ত টাকা উপার্জন করার চাহিদা দিন বদলের সাথে সাথে বেড়েই চলেছে। যা কিনা খুবই চোখে পড়ার মতো।

তবে একটু চেষ্টা করলে যে কোন ব্যক্তি বা যে কেউ অনলাইনে ইন্টারনেট ব্যবহার করে টাকা উপার্জন করতে পারবেন। এমনটা নয় যে আপনার মধ্যে কোন প্রতিভা নেই, কেননা ঈশ্বর সকলকে কিছু না কিছু প্রতিভা দিয়েই তবে কিন্তু এই পৃথিবীতে পাঠিয়ে থাকেন।

ঘরে বসে অনলাইনে টাকা উপার্জন করুন এই পদ্ধতি গুলি দিয়ে
ঘরে বসে অনলাইনে টাকা উপার্জন করুন এই পদ্ধতি গুলি দিয়ে

আপনার কাছে যা প্রতিভা আছে সেটা হয়তো আপনি কখনোই খেয়ালই করে দেখেন নি। সেটা খুঁজে বার করার চেষ্টা করুন আর তার উপর নির্ভর করে আপনি অনায়াসেই অনলাইনে টাকা উপার্জন করতে পারবেন। শুধু মাত্র আপনার প্রতিভাকে খুঁজে বের করার অপেক্ষা, সেটা যেকোনো কিছু হতে পারে।

তো এই পরিস্থিতিতে অনলাইনে কিভাবে কিছু সময় অতিবাহিত করে টাকা উপার্জন করা যায়, এমন কিছু সহজ পদ্ধতি নিচে দেওয়া হল, যেগুলোর মধ্যে দিয়ে আপনার পছন্দমত কোন পদ্ধতি নির্বাচন করে তার উপরে কাজ করে উপার্জন করতে পারবেন।

Contents

১) ব্লগিং (Blogging) থেকে উপার্জন: 

ব্লগিং (Blogging) থেকে উপার্জন
ব্লগিং (Blogging) থেকে উপার্জন

অনলাইনে উপার্জন করার কথা বলতে গেলে সবার প্রথমে ব্লগিং এর কথা বলাটা অবশ্যম্ভাবী। কেননা এটি সবথেকে সহজ পদ্ধতি টাকা উপার্জন করার। ব্লগিং করার জন্য দুটি বিষয় এর দিকে খেয়াল রাখা জরুরী।

১) কোন বিষয়ে অভিজ্ঞ হওয়া (Expert in any Field)।

২) লেখার পদ্ধতি অথবা স্টাইল (Writing Skill)।

যখন কোন মানুষ এই দুটি পদ্ধতি ছাড়া ব্লগিং শুরু করে থাকেন তখন কিন্তু অনেকগুলো বাধা বিপদ সামনে আসতে থাকে। আর যদি আপনি বিষয়ে এক্সপার্ট হয়ে থাকেন, সেটাও টেকনোলজি হতে পারে, কুকিং হতে পারে, বিজনেস হতে পারে বা অন্য কিছু।

যেটা আপনি খুবই ভালভাবে বোঝাতে পারবেন, এর মধ্যে দিয়ে আপনার নতুন কোন কনটেন্ট লেখার জন্য অতটা বেশি পরিশ্রম করতে হবে না, আর আপনি আপনার পাঠকদের প্রশ্নের উত্তরও দিতে পারবেন খুবই সহজ ভাবে, কেননা এই বিষয়ে আপনি দক্ষ।

ব্লগিং (Blogging) থেকে টাকা উপার্জন করার পদ্ধতি: 

১) এডভার্টাইজিং (Advertising): অনেক অনলাইন এডভারটাইজিং কোম্পানি আছে তাদের বিজ্ঞাপন আপনি আপনার ব্লগে দিয়ে উপার্জন করতে পারবেন।

২) অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate Marketing): এক্ষেত্রে অন্য কারো প্রোডাক্ট বিক্রি করার ক্ষেত্রে আপনি তাকে সাহায্য করছেন, যখন আপনি অনলাইনে বিক্রি হওয়া কোন প্রোডাক্ট সেল করার জন্য সাহায্য করে থাকেন তাহলে সেই সেলার আপনাকে কমিশন দিয়ে থাকে প্রতিটি প্রোডাক্ট এর উপরে।

আপনি বড় বড় ই-কমার্স ওয়েবসাইট যেমন ধরুন ফ্লিপকার্ট, অ্যামাজন অথবা হোস্টিং কোম্পানির প্রোডাক্ট বিক্রি করে ভালোমতো উপার্জন করতে পারবেন। আপনি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এ এডভারটাইজিং এর থেকেও বেশি টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

৩) স্পনসর্ড পোস্ট (Sponsored Post): যখন আপনার ব্লগ একটু পপুলার হতে শুরু করবে তখন অনেক কোম্পানি তাদের প্রডাক্ট এর রিভিউ দেওয়ার জন্য আপনাকে বলতে পারে। রিভিউ দেওয়ার জন্য তারা আপনাকে সেই প্রোডাক্টের সাথে সাথে ভালো মতো একটা উপার্জন করার শর্তে টাকা দেবে। আপনার ব্লগ যে বিষয়ের সম্বন্ধিত হবে আপনাকে সেই বিষয় সম্বন্ধিত প্রডাক্ট দেওয়া হবে।

২) ইউটিউব (YouTube):

ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন
ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন

ইউটিউব এর সম্পর্কে কে জানে না বলুন তো ! তবুও বলে রাখা ভাল ওয়াল্ড এর তৃতীয় মোস্ট পপুলার ওয়েবসাইট হলো এই ইউটিউব। যেখানে প্রতিদিন মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউ হতে থাকে।

আর ইউটিউব হলো টাকা উপার্জন করার একটি দুর্দান্ত প্ল্যাটফর্ম। কনটেন্ট লেখাকে ব্লগিং বলা হয় আর ভিডিও আপলোড করাকে Vlogging বলা হয় যা কিনা ভিডিও ব্লগিং। এক্ষেত্রে দুটি বিষয় খেয়াল রাখাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ:-

১) কোন বিষয়ে অভিজ্ঞ হওয়া (Expert in any Field)।

২) প্রেজেন্টেশন / উপস্থাপন করার দক্ষতা (Presentation Skill)

প্রেজেন্টেশন এর মানে হলো নিজেকে কিভাবে অন্যের সামনে উপস্থাপন করা অথবা আপনি নিজেকে কিভাবে অপরের সামনে নিজেকে উপস্থাপন করতে পারেন। আপনার বলার ধরন, আপনার এক্সপ্রেসন খুবই জরুরী।

ভিডিওর বিষয় একটু বেশি খরচ হয়ে পড়ে, কেননা সুন্দর ভিডিও বানানোর জন্য ক্যামেরা অবশ্যই প্রয়োজন, তার সাথে স্ট্যান্ড, ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার ইত্যাদি প্রয়োজন তার সাথে সুন্দর আওয়াজ এর জন্য মাইক্রোফোন তো অবশ্যই জরুরি।

ইউটিউব থেকে টাকা উপার্জন করার পদ্ধতি:

১) অ্যাডসেন্স (AdSense): ইউটিউব আর এডসেন্স দুটিই কিন্তু গুগলের প্রোডাক্ট। প্রত্যেক ইউটিউবার বেশিরভাগ টাকা উপার্জন করে থাকেন এই এডসেন্স থেকে। তারা তাদের একাউন্টে ভিডিও আপলোড করার পর সেখানে গুগোল অ্যাডসেন্সের থেকে মনিটরিং করতে পারেন।

২) স্পনসর্ড ভিডিও (Sponsored Video): একটি পপুলার ইউটিউব চ্যানেল এর অনেক প্রোডাক্টের রিভিউ করার অফার আসে, আর এর মধ্যে দিয়ে ভালোমতো টাকা উপার্জন করা যেতে পারে।

৩) অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate Marketing): যদি আপনি আপনার চ্যানেলে বিভিন্ন রকমের প্রোডাক্টের রিভিউ করে থাকেন তাহলে সেই ভিডিওর ডিসক্রিপশন এ সেই প্রোডাক্ট কেনার জন্য লিংক ও দিতে পারবেন। যদি কেউ সেই লিঙ্ক থেকে সেই প্রোডাক্ট কিনে থাকেন তাহলে সেই প্রোডাক্টের কমিশন আপনি পাবেন।

৩) অনলাইন টিউশন থেকে উপার্জন: 

অনলাইন টিউশন থেকে উপার্জন
অনলাইন টিউশন থেকে উপার্জন

আজকাল বেশিরভাগ মানুষ অফলাইন এর থেকে অনলাইন কোর্স করার আগ্রহ প্রকাশ করছেন। এই অনলাইন কোর্স একটি এমন প্ল্যাটফর্ম যেখানে সবাই টাকা খরচ করে তাদের নিজের পছন্দমত স্কিল শিখতে পারবেন।

মনে করুন আপনি ফটোগ্রাফি তে আগ্রহী, এটি শেখার জন্য আপনাকে একটি একাডেমিতে জয়েন করতে হবে। তাছাড়া এটা তো কখনই সম্ভব হয়ে ওঠেনা যে, যেটা নিয়ে আপনি পড়াশোনা করতে আগ্রহী সেটার অ্যাকাডেমি সব সময়ের জন্য আপনার ঘরের আশে পাশেই হবে? তো আপনাকে হয়তো অনেকটা দূরে যেতে হবে।

এর জন্য বাড়ির বাইরেও আপনাকে বের হতে হবে। কিন্তু যখন অনলাইনে সেই কোর্স করবেন তখন ঘরে বসেই সেই কোর্স করতে পারবেন অনায়াসেই।

৪) আপনার স্কিল (প্রতিভা) এর দ্বারা অনলাইন থেকে উপার্জন করতে পারেন:

এখানে স্কিল অথবা প্রতিভা সম্পর্কে যেটা বলা হচ্ছে সেটা হল ইন্টারনেটে যে সমস্ত বিষয়গুলি নিয়ে কাজ করা যায়, সেগুলি সম্পর্কে আপনার দক্ষতা থাকতে হবে। যেমন ধরুন এস ই ও (SEO), এস এম ও (SMO), কোচিং, ওয়েব ডিজাইনিং, লিংক বিল্ডিং, লোগো ডিজাইন ইত্যাদি।

তার সাথে সাথে প্রতিনিয়ত ইন্টার্নেট মারকেটিং বেড়েই চলেছে। তো মানুষ তাদের নিজের অনলাইন বিজনেস কেও বাড়ানোর জন্য এক্সপার্ট কে খুঁজে থাকেন।

যারা কিনা টাকার পরিবর্তে কাজ করে থাকেন, কেননা সেই ব্যবসায়ী যদি শুধুমাত্র ব্যবসার কাজেই নিযুক্ত থাকেন তাহলে অনেকটা সময় অতিবাহিত হয়ে যায়, অন্য কোন কাজে মনোযোগ দেওয়া যায় না।

আর যদি আপনি কোন অনলাইন কাজ করতে চান বা আপনি অনলাইন কাজ করার জন্য খুবই দক্ষ তাহলে আপনিও ঘরে বসে টাকা উপার্জন করতে পারবেন আপনার অভিজ্ঞতা, দক্ষতা ও প্রতিভা দিয়ে।

উপার্জন করাটা কোন কঠিন বিষয় নয়, সবথেকে ভালো প্লাটফর্ম হল Fiverr”, তাছাড়া আরও অনেক ওয়েবসাইট আছে যেগুলি খুবই পপুলার সেখানে আপনি অনায়াসেই কাজ করতে পারেন।

৫) অনলাইনে জিনিসপত্র বিক্রি করে উপার্জন:

এখন অনেকেই হাতে তৈরি অনেক জিনিসপত্র বিক্রি করার জন্য অনলাইন প্লাটফর্ম কে বেছে নিয়েছেন। প্রতিনিয়ত সেই প্লাটফর্মে তাদের জিনিসপত্র এর ছবি আপলোড করে তা থেকে অর্ডার নিয়ে সেগুলো বিক্রি করে থাকেন এবং তা থেকে ভালো মত একটা উপার্জন করে থাকেন।

অনলাইন এ এমন অনেক ওয়েবসাইট আছে যেখানে আপনি জিনিসপত্র বিক্রি করতে পারবেন।যেমন ধরুন eBay, OLX, Quickr, Amazon ইত্যাদির উপরে আপনি আপনার জিনিসপত্র বিক্রি করতে পারেন। সেটা  জামাকাপড়ে হতে পারে বা হাতে তৈরি কোন ঘর সাজানোর জিনিস, ফার্নিচার, জুয়েলারি, আরো অনেক কিছু।

এমন অনলাইন মার্কেটপ্লেস কোনরকম বেশি পরিশ্রম ছাড়া টাকা উপার্জন করার খুবই সহজ পদ্ধতি দিয়ে থাকে। যেখানে আপনি সেলার এর হিসাবে জিনিসপত্র বিক্রি করে উপার্জন করতে পারবেন। যেগুলো আপনি ব্যবহার নাও করতে পারেন। যেমন সেলফোন, বুকস, ইলেকট্রনিক্স অ্যাপ্লিয়ান্স, ইত্যাদি বিভিন্ন ধরনের জিনিসপত্র হতে পারে।

৬) Fiverr থেকে কিভাবে উপার্জন করা যায় ?

Fiverr থেকে উপার্জন
Fiverr থেকে উপার্জন

একবার রেজিস্টার করার পর আপনার দক্ষতা কে এই প্লাটফর্মে আপনি বিক্রি করতে পারবেন, যার পারিশ্রমিক অথবা দাম বলা যেতে পারে $5 থেকে শুরু হয়ে থাকে, আর প্রতিটি সেলকে “Gig” বলা হয়। যখন কোনো ইউজার আপনার “Gig user” আপনার “Gig” কেনেন তো তার পরিবর্তে আপনি $5 পাবেন।

কিন্তু Fiverr প্রত্যেক sell এর 20% নিজের কাছে রেখে দিয়ে বাকিটা আপনাকে দিয়ে দেয়। Fiverr এ কাজ করা খুবই সহজ, আর যদি আপনার কোন ট্যালেন্ট থেকে থাকে তাহলে অবশ্যই এখানে রেজিস্টার করে কাজ করতে পারেন।

৭) অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে কিভাবে উপার্জন করবেন ?

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে উপার্জন
অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে উপার্জন

প্রত্যেক সেলার তাদের প্রডাক্ট কে অনলাইনে সেল করার ক্ষেত্রে সাকসেসফুল থাকেন না, এই জন্য অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে তাদের সেলিং করে থাকেন। মনে করুন আপনার একটি কাপড়ের দোকান আছে, কিন্তু আপনি সেই কাপড়গুলি খুবই ভালভাবে বিক্রি করতে পারছেনই না।

তাহলে আপনি অন্য কাউকে বলবেন যে যদি সে আপনার কাপড়গুলি বিক্রি করার ক্ষেত্রে সাহায্য করে থাকে তাহলে আপনি তাকে প্রতিটি বিক্রির উপরে অর্থাৎ প্রতিটি প্রোডাক্ট এর বিক্রিয়া উপরে কমিশন দেবেন। আর এটাই হলো অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং অর্থাৎ আপনি কোন কোম্পানির হয়ে সেই কোম্পানির প্রোডাক্ট বিক্রি করার ক্ষেত্রে সাহায্য করছেন।

কিভাবে শুরু করবেন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং?

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করার জন্য আপনাকে কোন ইনভেস্টমেন্ট করতে হবে না। আপনি আপনার প্রথম শ্রেণীর ই – কমার্স সাইট যেমন ধরুন ফ্লিপকার্ট, অ্যামাজন, থেকে অনায়াসেই শুরু করতে পারেন।

এদের অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম এ জয়েন করার পর আপনাকে প্রতিটি প্রোডাক্ট এর একটি এফিলিয়েট লিংক দেওয়া হবে, যা কিনা ইউজার সেই সমস্ত লিংক থেকে যদি প্রোডাক্ট কিনে থাকেন তাহলে আপনি সেই প্রোডাক্টের কিছু পার্সেন্ট কমিশন পাবেন। আপনি এই লিংক আপনার ব্লগ, ভিডিও, সোশ্যাল মিডিয়া, আর ইমেইল থেকে শেয়ার করতে পারেন।

৮) Online Paid Surveys থেকে টাকা উপার্জন:

Online Paid Surveys থেকে টাকা উপার্জন
Online Paid Surveys থেকে টাকা উপার্জন

এটি খুবই সহজ আর সুরক্ষিত পদ্ধতি অনলাইন উপার্জন করার। এই পদ্ধতি সবার মধ্যে খুবই কমন আর প্রসিদ্ধি, কেননা এর মধ্যে ইউজারকে অতটা বেশি মাথা ঘামাতে হয় না। শুধুমাত্র বলে রাখা ইনস্ট্রাকশন কে ফলো করতে হবে, এমন টাস্ক কমপ্লিট করার উপরে আপনি কোম্পানিগুলি থেকে কিছু টাকা প্রাপ্ত করতে পারবেন।

এখন আপনি ভাবতেই পারেন যে, এত সহজে কোম্পানিগুলি আপনাকে কেন টাকা প্রদান করবে ! এর উত্তরে বলা যেতে পারে, অনলাইন সার্ভে গুলি কে মুখ্য রূপে সার্ভে কোম্পানি গুলি চালিয়ে থাকে। সার্ভে কোম্পানি গুলি সাধারণত প্রসিদ্ধ উৎপাদন আর সহযোগিতা সম্পর্কে ইন্টারনেট ইউজার কে ওপিনিয়ন অথবা ভিউজ এর জন্য তাদেরকে Pay করে থাকে।

তাছাড়া ইন্টারনেটে fraud Company গুলির সংখ্যা অতিমাত্রায় বেড়ে গিয়েছে। তবে অবশ্যই কোম্পানির টার্মস এন্ড কন্ডিশনস (Terms and Conditions) ভালো করে পড়ে নিতে হবে, তার সাথে সাথে যোগ্য রিভিউ অনুসারে তাতে জয়েন (Join) করতে হবে।

৯) URL Shortner থেকে টাকা উপার্জন: 

এর মানে হলো যে কোনো ইউ আর এল (URL) কে শর্ট বা ছোট করা। এখন আপনি ভাবতে পারেন ইউ আর এল (URL) কে ছোট করার কি প্রয়োজনীয়তা রয়েছে, আর এ থেকে কিভাবে টাকা উপার্জন করা যায়, তাছাড়া এই চিন্তা হওয়াটা খুবই সাধারণ বিষয়।

URL Shortner থেকে টাকা উপার্জন
URL Shortner থেকে টাকা উপার্জন

অনেক সময় লম্বা আর বড় ইউ আর এল কারোরই পছন্দ হয় না। এমন পরিস্থিতিতে যদি আপনি কারো সাথে কোন লিংক শেয়ার করেন তো কোনরকম বড় ইউআরএল আপনি কখনোই পছন্দ করবেন না নিশ্চয়ই, কি তাই তো ! তাই URL Shortener খুবই উপকারে আসে।

Google Shortner নাম আপনি নিশ্চয়ই শুনেছেন, যার ব্যবহার ইউআরএল কে ছোট করার জন্য করা হয়ে থাকে, কিন্তু গুগোল এই সার্ভিসটি বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তাছাড়া একটি ফ্রি সার্ভিস ও ছিল, এর জায়গাতে Shortner এর ব্যবহার করতে পারেন, যার ফলে আপনি ভালোমতো পকেটমানিও পেয়ে যাবেন।

এর জন্য আপনাকে বড় বড় লিংক যে গুলি আপনি শেয়ার করতে চাইছেন সেগুলি Shortner Websites এর সাহায্যে ছোট করতে পারবেন, আর যখন আপনি এটি শেয়ার করবেন তখন কোন ভিজিটর এই লিংক ওপেন করবেন। তখন তাকে প্রথমে একটি বিজ্ঞাপন দেখানো হবে, তারপরেই মেন ওয়েবসাইট কে migrate করতে পারবেন। এই বিজ্ঞাপন দেখানোর জন্য আপনি টাকা পাবেন।

ইন্টারনেটে এমন অনেক URL Shortener Website উপলব্ধ আছে যার মধ্যে বেশির ভাগটাই Fake, আর অনেকে খুবই কম পেআউট করে থাকে। এই জন্য বেস্ট ওয়েবসাইট গুলোর একটি লিস্ট নিচে দেওয়া হল, যেগুলি আপনি ব্যবহার করতে পারেন।

১) Shrinkearn.com

২) Ouo.io

৩) Shorte.st

এর মধ্যে সবথেকে গুরত্বপূর্ন ওয়েবসাইট হলো (Shrinkearn.com) এর ইউজার ইন্টারফেস (User Interface) খুবই ভালো আর এতে $2 প্রতি পে আউট এর সুবিধা ও রয়েছে। তার সাথে বিজ্ঞাপন ও বেশি আসে না, যা কিনা ইউজারকে বিরক্ত করে থাকে।

১০) ফ্রিল্যান্সিং (Freelancing) থেকে টাকা উপার্জন:

ফ্রিল্যান্সিং হলো উপার্জনের একটি সুন্দর রাস্তা। অনেকদিন আগে থেকে এর ব্যবহার, কিন্তু ফ্রিল্যান্সার প্রজেক্ট এর আধারের ওপরেও কাজ করতে পারেন।

একজন স্বাধীন লেখক হিসেবেও ফ্রিল্যান্সিং প্লাটফর্মের উপর কাজ করে উপার্জন করতে পারেন নিজের ওয়েব সাইট অথবা ব্লগ স্থাপন করার মধ্যে দিয়ে। তাছাড়া আপনি কোন অন্য ওয়েবসাইট আর ব্লগ এর জন্য লেখার মধ্যে দিয়ে তার সাথে সাথে পুস্তক সমীক্ষা, কেস স্টাডিস লিখেও টাকা উপার্জন করতে পারেন।

ফ্রিতে অনলাইন টাকা উপার্জন করার জন্য আপনার কি প্রয়োজন?

যদি আপনি অনলাইন থেকে টাকা উপার্জন করতে চান, তাহলে নিচে দেওয়া এই সমস্ত জিনিস পত্র গুলি আপনার খুবই প্রয়োজনীয় হয়ে পড়বে অথবা এগুলি খুবই জরুরী।

১) স্মার্টফোন / ল্যাপটপ / কম্পিউটার 

২) খুব ভালো ইন্টারনেট কানেকশন

৩) অনেকটা ধৈর্য অথবা Patience 

৪) আসল (Real) আর নকল (Scam) চেনার অভিজ্ঞতা।

এত কিছুর পরেও বর্তমানে বহু মানুষ অনলাইনে কাজ করে ভালো মতো উপার্জন করছেন। বলতে গেলে প্রতি মাসে লাখ লাখ টাকা উপার্জন করছেন। অনেকে বর্তমান কর্ম জীবনের পাশাপাশি ঘরে বসে অবসর সময়ে অনলাইনে কাজ করে অতিরিক্ত টাকা উপার্জন করছেন, যা কিনা অনেকটাই সুবিধাজনক আর জীবনকে অনেক বেশি সহজ করে তুলেছে।

অনলাইন টাকা উপার্জন করার জন্য কোন রকম ফিস ভরার প্রয়োজন পড়বে কি ?

এর উত্তরে হ্যাঁ ও বলা যেতে পারে আবার না ও বলা যেতে পারে। কিছু এমন মাধ্যম রয়েছে যেখানে আপনার অনলাইনে কাজ করার জন্য টাকা দেওয়ার প্রয়োজন পড়বে। আবার এমন কিছু পদ্ধতি রয়েছে যেখানে অনলাইন টাকা উপার্জন করার জন্য আপনাকে কোনরকম ফিস ভরার প্রয়োজন পড়বে না, আপনি FREE তে অনলাইনে কাজ করে টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

অনলাইন থেকে আমরা প্রতিদিন কত টাকা উপার্জন করতে পারি?

এই প্রশ্নের কোন সহজ সরল উত্তর দেওয়া সম্ভব নয়। আপনি প্রতিদিন কত টাকা উপার্জন করতে পারেন এই বিষয়টি আপনি আর আপনার কাজের উপরেই নির্ভর করবে। কেননা এই কথা তো সকলেই জানেন যে, আমরা যতটা পরিমাণ পরিশ্রম করব ততটা পরিমাণ আমাদের সেই কাজের প্রতিফল মিলবে।

তেমনি আপনার কাজ করার পদ্ধতি আর আপনার এক্সপেরিয়েন্স অথবা দক্ষতা, অভিজ্ঞতা যাই বলুন না কেন, সেটা যদি খুবই ভালো হয় এক্ষেত্রে এগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে, যে আপনি প্রতিদিন কত টাকা উপার্জন করতে পারেন অনলাইন থেকে।

Leave a Comment