Bengali Business News - Latest Loan News - Bank Updates - Mutual Fund and Insurance News

West Bengal Government Schemes News, Loan, Bank, Mutual Fund, Insurance and Startup Business News of West Bengal.

দারুন খবর ! 15 আগস্ট করোনা মহামারীর ভ্যাক্সিন আসতে চলেছে, জেনে নিন এই ভ্যাক্সিন সম্পর্কে সবকিছু

করোনার এই মহামারীতে সকলের মনে একটাই চিন্তা, কবে আমারা এই মহামারী থেকে মুক্তি পাব? কবে করোনার ভ্যাক্সিন চালু হবে? আপনাদের জন্য সুখবর। 15 আগস্ট করোনা মহামারীর ভ্যাক্সিন চালু করা হাবে। আসুন জেনেনিন বিস্তারিত ভাবে।
India's First Coronavirus Vaccine Launched By August 15
ইন্ডিয়া বায়োটেক এবং ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিল (ICMR) মিলে এই ভ্যাক্সিন লঞ্চ করতে পারে বলে এমনটাই জানানো হয়েছে। এই ভ্যাক্সিনটি ফারমাসিউটিক্যাল সংস্থা ভারত বায়োটেক প্রস্তুত করেছে।
আপনাদের জন্য একটি সুসংবাদ। এই সুসংবাদটি হল করোনা ভাইরাসের ভ্যাক্সিন শীঘ্রই বাজারে পাওয়া যাবে। আশা করা যায় যে 15 আগস্ট 2020 সালের মধ্যেই করোনার ভ্যাক্সিন কোভ্যাক্সিন চালু করা যেতে পারে। এই ভ্যাক্সিনটি ফার্মাসিউটিক্যাল সংস্থা ভারত বায়োটেক প্রস্তুত করেছে। ইন্ডিয়া বায়োটেক এবং ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিল (ICMR) মিলে এই ভ্যাক্সিন চালু করতে পারে।

কবে এই বায়োটেক ভ্যাক্সিনটি বাজারে আসবে?

সম্প্রতি কোভ্যাক্সিনটি মানব শরীরে পরীক্ষার জন্য ভারত বায়োটেক অনুমোদিত হয়েছে। ICMR এই বিষয়ে একটি চিঠি প্রকাশ করেছে। চিঠিতে বলা হয়েছে, মানব শরীরে পরীক্ষা জুলাই থেকে শুরু হবে। এটি বিভিন্ন পর্যায়ে চেষ্টা কোড়া হবে। সমস্ত ট্রায়াল যদি সঠিক থাকে তবে 15 আগস্টের মধ্যে কোভ্যাক্সিন চালু করা যেতে পারে। বিশেষ বিষয় হল ইন্ডিয়া বায়োটেক ভ্যাক্সিন বাজারে প্রথম আসতে পারে।

ট্রায়াল এক সপ্তাহের মধ্যে সম্পন্ন হবে :

ইন্ডিয়ান বায়োটেক এবং ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিল (ICMR) একসাথে মিলে করোনা ভাইরাসের এই ভ্যাক্সিন নিয়ে রিসার্চ করেছে। ICMR সমস্ত এজেন্সি এবং হাসপাতাল, স্টোকহোল্ডারদের চিঠি দিয়েছে। চিঠিতে জানিয়েছে যে এই ভ্যাক্সিন মানুষের শরীরে পরীক্ষা করা হবে।  এই ব্যাপারে হসপিটাল এবং এজেন্সিগুলিকে কাজ করতে হবে। সাধারণত ট্রায়ালটি শেষ হতে ছয় মাস সময় লাগে কিন্তু এর মানবিক পরীক্ষা এক সপ্তাহের মধ্যে শেষ হবে। তবে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন যে ভ্যাকসিনটি নীতিগতভাবে ঘোষণা করা উচিত তবে ভ্যাক্সিনটি বাজারে আসতে আরও কিছুদিন সময় লাগবে।

ভারত বায়োটেক সংস্থাটি বেশ কয়েকটি ভ্যাক্সিন তৈরী করেছে :

হায়দাবাদ ভিত্তিক ফার্মা সংস্থা ভারত বায়োটেক দাবি করেছে যে, কোভ্যাক্সিনের ফেজ-২ এবং ফেজ-২ এর মানবিক পরীক্ষার জন্য এটি DCGI এর কাছ থেকে অনুমোদন পেয়েছে। এই সংস্থাটি আরও জানিয়েছে যে জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহে ট্রায়ালের কাজ শুরু করা হবে।  বাটোর বায়োটেকের ভ্যাক্সিন তৈরির অভিজ্ঞতা আগেও রয়েছে। ভারত বায়োটেক পোলিও, রেবিজ, রোটাভাইরাস, জাপানি এনসেফালাইটিস, চিকুনগুনিয়া এবং জিকা ভাইরাসের ভ্যাক্সিন তৈরী করছে। যদি ট্রায়াল সফল হয়, তাহলে 15 আগস্ট ভ্যাক্সিনটি বাজারে চালু করা হবে।




প্রথম মানব শরীরে ট্রায়াল করা প্রথম ভ্যাক্সিন :

বলা যায় যে এটি দেশের প্রথম করোনা ভাইরাসের ভ্যাক্সিন। যার জন্য মানব শরীরে পরীক্ষার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। জুলাই মাসে ভারত জুড়ে এই ভ্যাক্সিনের ট্রায়াল শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। ভারত বায়োটেক ছাড়াও অনেক সংস্থা এ বিষয় নিয়ে কাজ করছে। এই ভারতীয় সংস্থাগুলি হল জাইডাস ক্যাডিলা, ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট এবং প্যানাসিয়া বায়োটেক। আশা করা যায় ট্রায়ালের কাজ শেষ হলেই আপনার 15 আগস্ট ভ্যাক্সিনটি বাজারে পেতে পারেন।

আশা করি আমাদের এই তথ্য আপনাদের সাহায্য করবে, যদি আমাদের এই তথ্য আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই সকলের সাথে শেয়ার করবেন এবং এই ধরণের আরো নতুন নতুন তথ্য পাবার জন্য আমাদের ওয়েবসাইটে নজর রাখুন।নতুন নতুন আপডেট পাবার জন্য আমাদের Facebook Page লাইক ও ফলো করুন।
Comment on This News.