West Bengal Government Schemes News, Bangla Bhumi

West Bengal Government Schemes News, Startup Business News of West Bengal, Khatian and Plot Information of West Bengal

বাঁশের তৈরী জিনিসের ব্যবসা শুরু করুন মোদী সরকারে আত্মনির্ভর যোজনার অন্তর্গত, Startup Business

Start Bamboo Product Business Under Government Schemes
মোদী সরকারের আত্মনির্ভর সহায়তায় নানা ছোট ছোট ব্যাবসা চালু করতে পারেন। বাঁশ দিয়ে নানা জিনিস বানিয়ে ব্যবসা চালু করতে পারেন। বাঁশ দিয়ে জলের বোতল, বাঁশের কাপ প্লেট, চামচ, কাঁটাচামচ প্রভৃতি জিনিস বানিয়ে ছোটখাটো ব্যবাসা চালু করতে পারেন। মোদী সরকার 2018 সালে গাছের বিভাগ থেকে বাঁশকে বাদ দিয়েছেন। তাই এখন কৃষকরা সহজেই বাঁশ চাষ করতে পারেন। গত বছর সরকার প্লাস্টিক নিষিদ্ধ করেছেন। আমরা এখন প্লাস্টিকের বদলে বাঁশের তৈরী জিনিস ব্যবহার করতে পারি। আজকাল বাজারে বাঁশের তৈরী ঝুড়ি, বাঁশের জলের বোতল, রান্নার চামচ, খাবার প্লেটের ভীষণ চাহিদা বেড়েছে।

কীভাবে বাঁশের তৈরী জিনিস বানাবেন ?

আজ আমরা আলোচনা করবো কীভাবে বাঁশ দিয়ে নতুন ব্যাবসা শুরু করতে পারেন। সরকার যখন প্লাস্টিক ব্যাবহার নিষিদ্ধ করছিল তখন বাজারেতে বাঁশের তৈরী জিনিসপত্র এসেছিল। খাদি গ্রাম শিল্প কমিশন বাঁশের বোতলও প্রস্তুত করে মার্কেটেতে এনেছিল। বাঁশ দিয়ে বিভিন্ন কাজের জিনিসপত্র তৈরী করার জন্য সরকার খাদি গ্রাম শিল্প কমিশন দ্বারা ট্রেনিং দেওয়া হয়। বাঁশের জিনিসের তৈরির জন্য এবং কি ধরণের জিনিসের বাজারে বেশি চাহিদা আছে তার জন্য বিশেষ রিপোর্ট দেওয়া হয়। এই ব্যবসার জন্য সরকারি যোজনার লাভ দেওয়া হয়ে থাকে যেখানে বিনা গ্যারেন্টি লোন এবং সাবসিডি দেওয়া হয়ে থাকে। সরকারের প্রধান উদ্দেশ্য ভারতীয় জিনিস বাজারে নিয়ে আসা এবং দেশের জিনিসের ব্যবহার বাড়ানো।

কীভাবে প্রশিক্ষণ নেবেন ?

খাদি গ্রাম শিল্প কমিশন এখন মধুর মতো কুটিরশিল্পের সাথে বাঁশ শিল্পের দিকে মনোনিবেশ করেছে। খাদি গ্রাম শিল্প এখন বাঁশের নানা ধরণের জিনিসপত্র প্রস্তুত করতে লোকেদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে। এ সম্পর্কিত আরও তথ্য জানতে বা প্রশিক্ষণ নিতে আপনি খাদি গ্রাম শিল্প কমিশনের ওয়েবসাইটে যেতে পারেন।
খাদি গ্রাম শিল্প কমিশনের ওয়েবসাইট-এর লিংকটি হল www.kvic.gov.in/kvicres/index.php -এর থকে আপনারা সব কিছু জানতে পারবেন।
খাদি গ্রাম শিল্প কমিশন সুত্রে জানা যায়, বাজারে 750ml বাঁশের বোতলের দাম 300 টাকা থেকে শুরু হয়। আজকাল তো বাজারে এই ধরণের জিনিসপত্রের চাহিদা প্রচুর বেড়ে গিয়েছে। জাতীয় বাঁশ মিশনের ওয়েবসাইট nbm.nic.in থেকে বাঁশের বোতল বা অনান্য জিনিসপত্র কীভাবে তৈরী করবেন তার প্রশিক্ষণ নিতে পারেন। সরকার কয়েকটি সংস্থাকে বাঁশ থেকে পণ্য তৈরীর প্রশিক্ষণ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। এই সংস্থাগুলি সম্পরকে তথ্য জানতে nbm.nic.in/Hcssc.aspx এই লিংকে যেতে পারেন। (দুর্দান্ত স্টার্টআপ ব্যবসার আইডিয়া দেখুন)




এই বাঁশ শিল্পের ব্যাবসা শুরু করতে কত ব্যয় হতে পারে ?

বাঁশ শিল্পে বিভিন্ন ব্যাবহার রয়েছে। প্রতিটি কাজ শুরু করার জন্য আলাদা আলাদা ব্যয় হয়। মধ্য সরকারের মতে, বাঁশ দিয়ে অলংকার তৈরী করতে ইউনিট বানাতে 15 লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে। ধূপ কাঠি ইউনিট বানাতে 20 লক্ষ টাকা খরচ হয়েছ। এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে gov.in/MPSBM এই লিংকে যেতে পারেন। ( সরকারি লোন যোজনা )

কী ধরণের বাঁশের জিনিস বানাতে পারেন ? 

আমরা সকলে বাঁশের তৈরী ঝুড়ি, লাঠি, এছাড়া নানা আসবাব পত্র বানানোর জন্য ব্যবহার করা হয়েছে। তবে এখন বাঁশ দিয়ে জলের বোতল, থালা, চামচ, গহনা প্রভৃতি জিনিস তৈরী করতে পারেন। বাজারে বাঁশের তৈরী বিভিন্ন ধরণের ল্যাম্প সেটগুলির প্রচুর চাহিদা রয়েছ।

বাঁশ চাষের সুবিধা :

মোদী সরকার 2018 সালে গাছের প্রজাতি থেকে বাঁশ গাছকে ছড়িয়ে দিয়েছেন। কৃষকরা এখন সহজেই বাঁশ চাষ করতে পারেন। জাতীয় বাবু মিশনকে প্রযুক্তিগত সহায়তা দেওয়ার জন্য বাবু টেকনিক্যাল সাপোর্ট গ্রুপ (বিটিএসজি )ও গঠন করা হয়েছে।

মোদী সরকার কৃষকদের আয় বৃদ্ধি  এবং ক্ষুদ্র শিল্পের প্রচারের জন্য ধারা্বাহিকভাবে কাজ শুরু করা হয়েছে। সরকার আত্মনির্ভর ভারত বানানোর জন্য সকলকে নানা সুবিধা দিচ্ছেন। এই মোদী সরকারের সহায়তায় বাঁশ শিল্পের মতো ক্ষুদ্র শিল্পগুলিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য স্বনির্ভর প্রকল্প  চালু করেছেন। স্বনির্ভর প্রকল্পে দেশীয় জিনিসপত্রের ব্যবহার প্রচারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 

আশা করি মোদী সরকারে আত্মনির্ভর যোজনার অন্তর্গত এই ব্যবসা আপনাদের সাহায্য করবে, যদি আমাদের এই তথ্য আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই সকলের সাথে শেয়ার করবেন এবং এই ধরণের আরো নতুন নতুন তথ্য পাবার জন্য আমাদের ওয়েবসাইটে নজর রাখুন।

Comment on This News.