About Pulse rate and nature in Bengali Laguage : Narir Goti o Prokiti Bangla

About Pulse rate and nature in Bengali Laguage : Narir Goti o Prokiti Bangla
About Pulse rate and nature in Bengali Laguage : Narir Goti o Prokiti Bangla
রোগ নির্ণয়ে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা 

বিভিন্ন রোগে নাড়ীর গতি-প্রকৃতি বিভিন্ন রকম হয়ঃ 

বিভিন্ন রোগের নাড়ীর গতি বিভিন্ন হয় , নিচে বিভিন্ন নাড়ীর গতি ও প্রকৃতি সম্পূর্ণ ভাবে দেওয়া আছে, বিভিন্ন অবস্থার নাম এবং তা কিভাবে বুঝতে পারা যাবে। 

(১)জ্বর অবস্থায় – নাড়ী উষ্ণ ও দ্রুতগতি সম্পন্ন হয়।

(২)উদারময় বা পেটের অসুখে- নাড়ী শীতল ও দুর্বল অনুভূত হয়।

(৩)পিত্ত ও শ্লেষ্মা জ্বরে- নাড়ী কৃশ এবং সময়ে সময়ে শীতল ও মৃদুমন্দ গতি সম্পন্ন হয়।

(৪)বাত শ্লেষ্মা জ্বরে- নাড়ী মৃদুমন্দ গতিতে ধাবমান অ ঈষদুষ্ণ হয়।

(৫)বিষভক্ষণে বা সর্পদংশনে- নাড়ী গতি অত্যন্ত অস্থিরভাব যুক্ত হয়।
About Pulse rate and nature in Bengali Laguage
(৬)বায়ু ও পিত্ত জ্বরে- নাড়ী চঞ্চল, স্থূল, কঠিন এবং দোদুল্যমান অবস্থায় সঞ্চরমান হয়ে থাকে।

(৭)ঐকাহিক জ্বরে- নাড়ী থেকে থেকে প্রবাহিত হয় অর্থাৎ কিছুক্ষণ চলার পর কিছুক্ষণ স্তব্ধ আবার সঞ্চারমান আবার স্তব্ধ এইভাবে চলতে থাকে।

(৮)স্ত্রী সম্ভোগের পরে- নাড়ী তীব্র ও সরলগতি সম্পন্ন হয়।

(৯)মলরোধ ঘটলে- নাড়ী ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে।

(১০)অস্ত্রাঘাতে ও পতনে- নাড়ীর গতি হংস ও গজ সদৃশ হয়।

(১১)প্রমেহ ও উপদংশে- নাড়ীর গতি মাঝে মাঝে বাধাপ্রাপ্ত হয়।

(১২)পুরাতন রোগে- নাড়ী কখনো স্থুল কখনো দ্রুতগতি হয়ে থাকে।

(১৩)অজীর্ণরোগ- নাড়ী সচরাচর স্থুল হয়ে থাকে।

(১৪)ক্রিমি রোগ- নাড়ী স্থুল, কখনো দ্রুত বা কখনো মৃদুগতি যুক্ত হয়।

(১৫)কলেরায়- নাড়ী দুর্বল ও স্তব্ধ মনে হয়।

(১৬)রক্তস্রাব জনিত কারণে- নাড়ী হালকা, চঞ্চল, ধীরে ও মৃদুগতিযুক্ত হয়ে থাকে।

About Pulse rate and nature in Bengali Laguage(১৭)যক্ষ্মারোগে- নাড়ী মৃদু ও দুর্বল হয়ে থাকে।

(১৮)কাশ রোগে- নাড়ী দ্রুত ও অনিয়মিত ভাবে প্রবাহিত হয়ে থাকে।

(১৯)শ্বাস রোগে- নাড়ী কখনো দ্রুত বা কখনো মৃদু-মন্দ গতি সম্পন্ন হয়ে থাকে।

(২০)বিষমজ্বরে- নাড়ী স্থির ভাবে সঞ্চরমান হয়।

(২১)ত্রিবিধজ্বরে- [বায়ু, পিত্ত কুপিত, কফ প্রভাবিত] নাড়ী ভ্রমরগতি যুক্ত হয়ে থাকে।

(২২)কামজ্বরে- নাড়ীর গতি চঞ্চল হয়।

(২৩)ক্রোধজ্বরে-  নাড়ী দ্রুতগতি সম্পন্ন হয় ।

(২৪)সর্দিরোগে- নাড়ী ধীরে, মৃদুমন্দ বা কখনো চঞ্চল হয়ে থাকে।

(২৫)বাত ও শুল রোগে- নাড়ী অতি বক্রগতি ভাবে হয়।

উপরোক্ত ২৫ বিভিন্ন রকম নাড়ীর গতি ও প্রকৃতি দেওয়া হয়েছে যাহার দ্বারা আমরা বিভিন্ন পরিস্থিতিতে নাড়ীর গতি-প্রকৃতি অনুভব করে নির্দিষ্ট ও সটিক নির্ণয় নিতে পারি আর এটাও জানতে পারি যে আমাদের শরীরে কি চলছে ।